Bangla Incest Choti মধুরিমা 3

তার বন্ধু দের এবাড়িতে আনেনা অয়ন,ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হবার পর মিথুন আর কল্লোল কে এবাড়িতে এনেছিল একদিন। ছেলের বন্ধুদের সাথে মিষ্টি হেঁসে কথা বলেছিল মধুরিমা। বন্ধুদের চোখে মুগ্ধ দৃষ্টি তাদের সাথে মামনির সাবলীল আচারন তিব্র ইর্ষায় জ্বলে গেছিল অয়ন,কল্লোল কি তার চেয়ে বেশি হ্যান্ডসাম,মামনি বার বার ওরদিকে কি বেশি তাকাচ্ছে।
তোমরা বস,আমি তোমাদের চা পাঠাচ্ছি,”বলেছিল মধুরিমা
“মসিমা চা লাগবেনা,আপনার সাথে কথা বলতেই ভালো লাগছে আমাদের,” বলেছিল কল্লোল
“পাগল ছেলের কথা শোনো,”গালে টোল ফেলে হেঁসে বলেছিল মধুরিমা।বস তোমরা গল্প কর বলে বেরিয়ে গেছিল মধুরিমা।
তোরা বস আমি আসছি বলে মাকে সাহায্য করতে গেছিল অয়ন।
তোমাকে লাগবে না,তুমি যেয়ে বন্ধুদের সাথে গল্প কর,”বলে ছেলেকে ফেরৎ পাঠিয়েছিল মধুরিমা। ফিরে দরজার কাছে এসে থমকে গেছিল অয়ন,ঘরের মধ্যে কথা বলছিল কল্লোল আর মিথুন
মালটাকে দেখেছিস,কি পাছা মাইরি পিছন থেকে খেলতে যা লাগবে না।”
“হু,আহ আজ খেঁচতে হবে,”বলেছিল মিথুন
“আমারো।”
তার মাকে নিয়ে বন্ধুদের অশ্লীল কথা,তার সুন্দরী মাকে কল্পনা করে তাদের হস্তমৈথুনের পরিকল্পনা দুজনের উপরে রাগের চেয়ে উত্তেজনা হয়েছিল বেশি।একটু পরে চা নিয়ে এসেছিল মধুরিমা,সঙ্গে কেক আর চানাচুর,মিথুন যে সোফায় বসেছে তার আড়া আড়ি টেবিলে ট্রে রাখার সময় মামনির আঁচল সরে যেতে দেখেছিল অয়ন সেই সাথে মিথুনের বিষ্ফোরিত চোখের কামার্ত অভিব্যাক্তি ঘটিহাতা ব্লাউজ পরা গোল একটা পুর্ন স্তন,একঝলক।মামনি কি একটু সেজেছে কপালে ছোট একটা টিপ একপরল শাড়ীটা আর একটু পরিপাটি।সেরাতে স্বপ্নে মাকে কল্লোলের সাথে অশ্লীল ভঙ্গিতেদেখেছিল অয়ন,তার ফর্সা সুন্দরী মা সম্পুর্ন উলঙ্গ হয়ে পাছা তুলে ডগি স্টাইল যাকে বলে নগ্ন কল্লোল পিছনে দাঁড়িয়ে…স্বপ্ন স্বপ্নই কিন্তু মিথুন কে আনলেও কল্লোলকে আর কখনো বাড়িতে আনেনি সে।আসলে ঐ দিনের পর কল্লোলের সাথে একটা অদৃশ্য টানাপোড়ন শুরু হয়ে সম্পর্কটাই নষ্ট হয়ে যায় তার।মিথুনের বাড়িতে গেছে অয়ন,কল্লোলেরও,দুজনার মায়ের সাথে দেখা আর পরিচয় হয়েছে তার,মিথুনের মা,মাঝবয়সী মহিলা,বৈশিষ্ট্য হীনা,আর কল্লোলের মাতো বুড়ি,সেই তুলনায় নিজের মামনি ইউনিভার্সিটির যে কোনো তরুনীর মত যুবতী এবং তাদের তুলনায় অনেকাংশেই বেশি সুন্দরী।ওদের মত জিন্স বা চুড়িদার না পরলেও যথেষ্ট আধুনিকা।কোলকাতা শহরে জন্ম বেশ বড়লোকের মেয়ে,ছোটবেলা থেকে মামনিকে নিয়মিত বিউটিপার্লারে যেতে দেখেছে অয়ন ঘরে একপরল করে শাড়ী কিছুটা খোলামেলা ঘরোয়া হলেও বাইরে পুর্ন মাত্রায় স্টাইলিশ এবং মার্জিত মধুরিমা, বাইরে গেলে শাড়ীই পরে কুঁচি দিয়ে অজান্তা স্টাইলে, বাইরে থেকে আসার পর ছেড়ে রাখা বাইরে পরা শাড়ী ব্লাউজের সাথে সবসময় হালকা কালারের প্যান্টি নাড়া থাকতে দেখে অভ্যস্ত অয়ন জানে ঘরে না পরলেও বাইরে পরা শাড়ীর তলে প্যান্টি পরে মামনি।যদিও প্রোয়োজন ছাড়া কমই তাকে বাইরে বেরুতে দেখেছে অয়ন,তাদের নিজেস্ব গাড়িতে,বুড়ো রামদয়াল বা অয়ন নিজে ড্রাইভ করে বিউটিপার্লারে বা মার্কেটে পৌছে দেয় মামিনিকে।
তারপরদিন সকালে ঘুম ভেঙ্গে বারান্দায় এসে সদ্যস্নাতা মিধুরিমা কে দেখে চমকে যায় অয়ন,হালকা অফহোয়াইট শাড়ীর সাথে হালকা কলাপাতা রঙের একটা স্লিভলেস ব্লাউজ পরেছে মামনি ব্লাউজের কাধের কাছে স্ট্রাপ দুটো বেশ চিকন করে কাটা,ভরাট মাখনের মত বাহু সন্ধি বগলের খাঁজ সহ কাঁধের কাছে অনেকটাই বেরিয়ে আছে তার।চুল মুছছিল মধুরিমা ছেলেকে,”গুড মর্নিং, ঘুম হল,”বলে মিষ্টি হাঁসিতে উইশ করে ভেজা চুলে গামছা জড়ানোর জন্য বাহু তুলে বগলের তলাটা মেলে দিতেই একটা ঢোক গেলে অয়ন,মামনির ঐ জায়গাটা কখনো লোমহীন দেখেনি সে,কি মসৃন আর তেলতেলে লাগে মামনির বগল দুটো।
ছেলের মুগ্ধ দৃষ্টি তার বগলে আঁটকে গেছে বুঝে,”বগল কামালাম,তুমি মনে হয় বগল কামানো দেখনি আমার।”
মামনির কথায় হতঃভম্ব হয়ে মুখটা হাঁ হয়ে যায় অয়নের
“থাক আর হাঁ করে থাকতে হবেনা,” হাঁসি হাঁসি মুখে বলে মধুরিমা,”মায়ের তো আর কিছু দেখতে বাকি নেই তোমার।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *