Bangla Incest Choti মধুরিমা 2

মা চলে যেতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে অয়ন,মামনি একি করলে তুমি,আমি যে তোমাকে খুব ভালোবাসি।উহঃ কি সুন্দর সারা জীবনেও এই উত্তেজক মুহূর্তটা ভুলবেনা সে মামনির ওটা কি সুন্দর চুল ওখানে,ওভবে কাঁদতে কাঁদতেই মাতালের মত বাথরুমে ঢোকে অয়ন পাজামা নামিয়ে মুঠো করে ধরে উত্থিত আট ইঞ্চি দৈর্ঘের পুরুষাঙ্গটা,চোখের জলের ভেতরেই দৃশ্যটা ভাসে তার মামনি শাড়ী শায়া তুলে আছে, পাঁচ মিনিট,জগৎ সংসার পাপ পুন্য,অপরাধবোধ সব ভুলে যায় অয়ন,আহঃ আহঃ,একরাশ বির্য,ছিটকে পড়ে বাথরুমের মেঝেতে,যেন মামনির লোমে ঢাকা কড়ির মত ঐ জায়গায় পড়ছে বির্যগুলো,জীবনে কখনো এত পরিমানে বির্যপাত করেনি অয়ন,বাথরুমের মেঝেটা রিতিমত সাদা মনে হয় তার।
ঘটনাটা ঘটিয়ে বুঝেছিল মধুরিমা,বড্ড বাড়াবাড়ি হয়ে গেছে তার।আসলে ঐ অশ্লীল বইটা দির্ঘ বাইশ বছরের চেপে রাখা কামনার বিষ্ফোরন ঘটিয়েছে আজ তার মধ্যে।এত দিনের অবদমন, মনে মনে জানা যে তার যুবক হয়ে ওঠা ছেলে তাকে কামনা করে,অথচ সেটা জেনে বাধা দেয় নি সে বরং এতদিন প্রশ্রয় দিয়েছে ছেলেটাকে,মা হয়ে কখনো বলেনি এটা পাপ।আসলে সে নিজেই কি চাইতো না যে অয়ন তাকে কামনা করুক, অয়ন কে ওভাবে তার সবচেয়ে গোপোন জায়গাটা দেখিয়ে,একটা গোপান যৌনতৃপ্তি কি লাভ করেনি সে। নিজেকে প্রবোধ দেয় মধুরিমা যা হওয়ার তা হয়ে গেছে তার গোপোন জিনিষটা আর গোপোন নাই ছেলের কাছে।নিজেকে বোঝায় মধুরিমা,আর দেখলেই বা খুব দোষ কি,যে ছেলে তার মায়ের ছবী দেখে হস্তমৈথুন করে তার কাছে…কল্পনায় নিশ্চই তার গোপোন জায়গাটা ভেবেই ওকাজ করে ছেলেটা,তাই ঐ একটুকরো স্থানদেখা আর না দেখা সমান তার কাছে।দেহের ঐ টুকু অংশ গোপোন করে আর লাভই কি তার।আজকের এই ঘটনার পর অয়ন তাকে কি ঘৃনা করবে,না মনে হয়,ভাবে মধুরিমা যদি অয়ন অভিমানে দুরে সরে যায়,যদি তাকে আগের মত ভালোনা বাসে,হাজার হোক বড় হচ্ছে ছেলে, তবে কি দেহ দেবে ছেলেকে,না না, এত তাড়াতাড়ি নয়,আর একটু ধিরে এগুতে হবে তাকে,তবে তাকে ঘিরে ছেলের এই স্বমোহনটা যেন শুধু তাকে ঘিরেই থাকে সে চেষ্টা করতেই হবে তাকে সেইসাথে যত দ্রুত সম্ভব আজকের ঘটনার ক্ষতটা মেরামত করতে হবে তার,এটা নিয়ে অপরাধবোধে ভুগতে দেয়া যাবেনা অয়নকে।সন্ধ্যা হয়ে গেছে অনেক্ষন কোনো সাড়া শব্দ নাই অয়নের একটু ভয় পায় মধুরিমা,পা টিপে টিপে ছেলের ঘরের কাছে যায় সে,দরজায় কান পাতে,কোন শব্দ না পেয়ে আরো ভয় লাগে তার ভেজানো দরজা ঠেলতেই খুলে যায় একটু না পড়ার টেবিলে অয়ন স্বস্তির একটা নিঃশ্বাস ছেড়ে ঘরে ঢোকে মধুরিমা এগিয়ে যেয়ে দাঁড়ায় অয়নের টেবিলের সামনে। মুখ তুলে মাকে দেখে অয়ন,আগের মতই যেব বিকেলে কিছুই ঘটেনি এমন স্বাভাবিক মুখ মধুরিমার,
“এস খেতে এস,দেখি বলে ছেলের মুখটা আঁচল দিয়ে মুছিয়ে দেয় মধুরিমা মুখটা টেনে কপালে চুমু খেতেই মায়ের বুকে মুখ ডোবায় অয়ন।
“মামনি আমি..আমি”
“থাক কিছু হয়নি,”ওসব আর বলার দরকার নেই,চল খাবে চল,”বলে অয়নের হাত ধরে নিয়ে যায় খাবার ঘরে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *